Tuesday, February 14, 2017

তেঁতুল খাওয়ার উপকারিতাগুলো জানেন তো!

তেঁতুল আমাদের পরিচিত একটি টক ফল। এটি শরীরের নানা প্রকার প্রদাহরোধ করে, চোখ স্বাস্থ্য ভাল রাখে, শ্বাসনালীর জন্য উপকারি, ত্বকের ক্ষত সারায়, হজমশক্তি উন্নত করে, ব্যথানাশক, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিকারক, জ্বর কমায়, কোলস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখে, পাইলস রোগের চিকিৎসা, ক্যান্সার প্রতিরোধ এবং শিশুদের কৃমি ও পরজীবী ঘটিত নানা রকম রোগ থেকে রক্ষা করে।


তেঁতুল কাঁচাপাকা উভয় অবস্থায়, আচার, শুকিয়ে মশলা করে বিভিন্ন উপায়ে খাওয়া যায়। উপকারী এই ফল সম্পর্কে নানারকম ভ্রান্ত ধারণাও প্রচলিত আছে। অনেকে বলে থাকেন, এটি মানুষের স্মৃতিশক্তি হ্রাস করে ও পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা নষ্ট করে দেয়।

তেঁতুলের নানাবিধ উপকারিতা:

তেঁতুল বিশ্বজুড়ে খুবই উপকারি একটি ফল হিসেবে গণ্য হয়। কারণ এতে নানা প্রকার পুষ্টি উপাদান বিদ্যমান। এতে প্রচুর ভিটামিন সি, ভিটামিন ই, ভিটামিন বি, ক্যালসিয়াম, লৌহ, পটাশিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ এবং আঁশ রয়েছে। তেঁতুলে কিছু জৈব উপাদান রয়েছে যেগুলো শক্তিশালী এন্টি-অক্সিডেন্ট ও এন্টি-ইনফ্লামেটরী কাজে ব্যবহৃত হয়। চলুন জানা যাক, বিস্তারিত-

পৌষ্টিকতন্ত্রের স্বাস্থ্য:
তেঁতুলকে প্রাকৃতিক ল্যাক্সাটিভ বা জোলাপ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তেঁতুল খেলে হজমশক্তি বৃদ্ধি পাবে এবং কোষ্ঠকাঠিণ্যের সমস্যা দূর হবে। পিত্তরসের সক্রিয়তা বৃদ্ধির মাধ্যমে তেঁতুল দ্রুত হজমে সহায়তা করে। দীর্ঘদিন ডায়রিয়াজনিত সমস্যায় ভুগলে তেঁতুল খেতে পারেন।

হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখতে: 
রক্তচাপ ও রক্তের কোলস্টেরলের মাত্রা কমাতে সহায়ক তেঁতুল। তেঁতুলে থাকা পটাশিয়াম রক্তচাপ কমায়। পটাশিয়াম রক্তনালীর প্রসারণ ঘটিয়ে রক্ত সংবহনতন্ত্রের চাপ কমায়। তেঁতুলে থাকা ভিটামিন সি এন্টি-অক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে হৃদপিণ্ডকে সুস্থ রাখে।

লোহিত রক্ত কণিকা তৈরি: 
তেঁতুলে প্রচুর লৌহ রয়েছে। লৌহ লোহিত রক্তকণিকা তৈরিতে সহায়তা করে। রক্তশূণ্যতা, দূর্বলতা, অবসাদ, মাথা ব্যথা, মেধাশূণ্যতা, পাকস্থলীর সমস্যা ইত্যাদি দূর করে। তাই পর্যাপ্ত পরিমাণ তেঁতুল খান।

স্নায়ুর কার্যক্ষমতা সচল রাখা: তেঁতুলে ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স থাকে। এই পরিবারের একটি গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হচ্ছে থায়ামিন যা তেঁতুলে প্রচুর পরিমাণে বিদ্যমান। থায়ামিন স্নায়ুর কার্যক্ষমতা ঠিক রাখে ও পেশী উন্নত করে।

ওজন কমায়: 
তেঁতুল চূর্ণ থেকে হাইড্রোক্সি সাইট্রিক এসিড নামক একটি উপাদান পাওয়া যায়। এটি শরীরে চর্বি জমতে বাঁধা প্রদান করে।

ডায়াবেটিস প্রতিরোধ: 
তেঁতুল ওজন বৃদ্ধি প্রতিরোধ করে। ডায়াবেটিস প্রতিরোধে সহায়তা করে।

প্রদাহরোধী ক্ষমতা: 
তেঁতুল তেলের প্রদাহরোধী ক্ষমতা রয়েছে। অস্থিসন্ধির ব্যথা এবং প্রদাহ, বাত ও বাতজনিত অবস্থা এবং গাউট রোগ প্রতিরোধ করে। চোখের এলার্জি ও কনজাংটিভাইটিস রোগেও তেঁতুল খুবই উপকারি।

প্রজনন ক্ষমতা: 
তেঁতুলে ভিটামিন ই থাকায় তা প্রজনন ক্ষমতা কমায় না বরং ভাল রাখে।

সতর্কতা: 
তেঁতুল রক্তচাপ কমায় এবং রক্ত পাতলা করতে পারে। সুতরাং কোনো কারণে রক্তপাত শুরু হলে বন্ধ করা কঠিন হতে পারে। যদি অ্যাসপিরিন অথবা অন্যকোনো রক্ত পাতলা করার ওষুধ সেবন করেন সেক্ষেত্রে অতিরিক্ত তেঁতুল খাওয়া থেকে বিরত থাকবেন।

সূত্র: অর্গানিক ফ্যাক্টস ডট নেট।

Thursday, December 22, 2016

হৃৎপিণ্ডের শিরায় জমাট বাঁধা রক্ত গলবে যেভাবে!





বিশেষজ্ঞদের মতে, হৃদরোগে মৃত্যুর ৫০ শতাংশ হয়ে থাকে হৎপিণ্ডের শিরা-উপশিরার বিভিন্ন রোগের কারণে। রক্ত প্রবাহের আলোড়ন ও প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টির জন্য শিরার অভ্যন্তর ভাগের কোনো অংশ বিনষ্ট বা ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

সাধারণত ক্ষতিগ্রস্ত অংশের ওপর রক্ত জমাট বেঁধে ক্ষতিগ্রস্ত অংশকে (শিরা সম্পূর্ণ সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত) ঢেকে রাখে।

হৃৎপিণ্ডের শিরা-উপশিরার অভ্যন্তরে ক্ষত বা প্রদাহ হলে রক্তে অবস্থিত প্ল্যাটিলেট, লিপিড বা চর্বি, কোলেস্টেরল ও আঁশজাতীয় পদার্থ শিরার নিচের স্তর ইন্টিমাকে আক্রমণ করে ও পুঞ্জীভূত হয়। এতে শিরার সংকোচন প্রসারণ ক্ষমতা লোপ পায় এবং শিরা সংকীর্ণ বা সরু হয়ে পড়ে।

বিভিন্ন কারণে হৃৎপিণ্ডের শিরায় রক্ত জমাট বাঁধে। এতে হার্ট অ্যাটাক, হার্টে ব্লক হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।

আপনি কি জানেন, আপনার রক্তের চাপ স্বাভাবিক আছে কিনা? রক্তচাপ স্বাভাবিক না হলে কত বেশি? এসব তথ্য না জানলে দেরি না করে জেনে নিন এবং রক্তচাপ স্বাভাবিক মাত্রায় রাখতে সচেষ্ট হোন।

লাইফস্টাইল, খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন ও ব্যায়ামের মাধ্যমেও উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব। প্রাকৃতিক উপায়ে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করা গেলে ওষুধের ওপর নির্ভরশীলতা কমে যায়।

বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, বিশেষ কিছু খাবার শিরায় রক্ত জমাট বাঁধা প্রতিরোধে সাহায্য করে হার্ট সুস্থ রাখে। নিম্নে ওইসব খাবারের নাম দেয়া হল :

জলপাইয়ের তেল : জলপাইয়ের তেল কোলেস্টেরল প্রতিরোধ করে। এর মধ্যে থাকা ম্যানুস্যাচুরেটেড চর্বি খাবাপ কোলেস্টেরল প্রতিরোধ করে ও শিরায় রক্ত জমাট বাঁধায় বাধা দেয়।

ওট : ওটের সলিউবল আঁশ কোলেস্টেরল তৈরিতে বাধা দেয়। এই আঁশ হৃৎপিণ্ডের শিরার রক্তের জমাট প্রতিরোধ করে।

ডালিম : ডালিম একটি শক্তিশালী অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। এটি শিরার শক্ত হয়ে যাওয়া সমস্যার সঙ্গে লড়াই করে এবং শিরার রক্ত জমাট বাঁধা প্রতিরোধ করে।

মাছ : যেসব মাছের ওমেগা তিন ফ্যাটি এসিড রয়েছে, যেমন : স্যালমন, টুনা ইত্যাদি। এগুলো খাবারে জমাট বাঁধা রক্ত প্রতিরোধ করার ক্ষমতা রয়েছে।

টমেটো : টমেটোর মধ্যে লাইকোপেন রয়েছে। যাদের শরীরে লাইকোপেন ভালো মাত্রায় থাকে, তাদের হৃৎপিণ্ডের শিরার সমস্যা কমে যায়। এছাড়া টমোটো হৃৎপিণ্ডের শিরাকে শক্ত হতে দেয় না।

রসুন : রসুন উচ্চ রক্তচাপ এবং হৃদরোগ প্রতিরোধ করে। এছাড়া হৃৎপিণ্ডের শিরার জমে যাওয়া রক্ত প্রবাহিত করে।

Wednesday, December 14, 2016

কোলেস্টেরল কমিয়ে মেদ ঝরায় যে সবজি


মিষ্টি কুমড়া  একটি সবজির নাম। পুষ্টিগুণে ভরা এ সবজি দেহের রোগ প্রতিরোধ করে। কুমড়ার ভিটামিন-এ চোখকে কর্নিয়া থেকে রক্ষা করে থাকে। এ সবজি শরীরের কোলেস্টেরল কমিয়ে মেদ ঝরাতে সাহায্য করে।



এটি মানবদেহের সুস্থ ত্বক গঠনে সাহায্য করে। এ সবজিতে ক্যারটিনয়েড নামক উপাদান আছে, যা চোখে ছানি পড়া ও যেকোনো বয়সে চোখের সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি থেকে রক্ষা করে থাকে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, মিষ্টি কুমড়ায় ভিটামিন-এ, বি-কমপ্লেক্স, সি, ই, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রন, জিংক, ফ্লেভনয়েড পলি-ফেনলিক, অ্যান্টিঅক্সিডেণ্ট উপাদান সমূহ যেমন লিউটিন, জ্যানথিন এবং আরো অনেক উপাদান রয়েছে। কুমড়া ক্যালোরিও বেশ কম থাকে। তাই দেরি না করে প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় মিষ্টি কুমড়া রাখা জরুরি।
মিষ্টি কুমড়ায় আর কী কী উপকারিতা রয়েছে তা নিম্নে আলোচনা করা হল :

* অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ায় কোলেস্টেরল কম রাখতে সাহায্য করে।

* কুমড়াতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি আছে। যা সর্দি-কাশি, ঠাণ্ডা লাগা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।

* কুমড়ার ক্যালরির পরিমাণ খুব কম। আর ফাইবারের পরিমাণ বেশি থাকায় হজমে সহায়ক।

* কুমড়া ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে, কারণ এটা অ্যান্টি অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ।

* কুমড়াতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ রয়েছে।

* গাজরের তুলনায় কুমড়ায় প্রচুর পরিমাণে বিটা ক্যারোটিন রয়েছে। যা চোখের জন্য ভালো।

* ভিটামিন এ চকচকে ও উজ্জ্বল চুল এবং ত্বকের জন্য উপকারী। তাই কুমড়া খাওয়া অত্যন্ত জরুরি।  

* কুমড়াতে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেশিয়াম ও ভিটামিন সি রয়েছে।

* এটা ডিপ্রেশন কম রাখতে সাহায্য করে।

* কুমড়ায় প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম বিদ্যমান থাকায় হাইপারটেশন হওয়ার চান্স খুব কম।

এছাড়া কুমড়ার স্যুপ খেতে পারেন। গরম ভাতের সঙ্গে খেতে পারেন মিষ্টি কুমড়ার তরকারি ও ভর্তা।

Saturday, December 10, 2016

অবাক হলেও সত্য, ১৫ কেজি ওজন কমায় এক চামচ জিরা!

বিশেষজ্ঞদের মতে, জিরার এন্টিঅক্সিডেন্ট মানব দেহের মেটাবলিজমের হার বাড়ায়। এটি আমাদের দেহের ক্যালরি বার্ন করতে সাহায্য করে। পেটের মেদ কমাতে এটি খুবই কার্যকর। জিরা খাবার হজম প্রক্রিয়ায় কার্যকর ভূমিকা রাখে। পাকস্থলীতে গ্যাস জমতে বাধা দেয়। এটি শরীরে খারাপ চর্বি ও কলেস্টোরল তৈরিতে বাধা দেয়। জিরা শরীরের মেদ কমায় ও হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়।







এছাড়া জিরাকে জাদুকরি মসলাও বলা হয়। কারণ মাত্র এক চামচ জিরা প্রতিদিন খেলে আপনার ওজন ১৫ কেজি কমে যেতে পারে! কী বিশ্বাস হচ্ছে না! তাহলে আসুন জেনে নিই, জাদুকরি জিরার মিশ্রণ কীভাবে আপনার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করবে।

জিরার মিশ্রণ তৈরির প্রস্তুত প্রণালী ও ব্যবহার

মিশ্রণ

(১) : এক টেবিল চামচ আস্ত জিরা এক গ্লাস পানিতে সারা রাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে ওই পানি ফুটিয়ে নিন। পানি ছেঁকে এতে অর্ধেক লেবুর রস মেশান। এই পানি প্রতিদিন সকালে পান করুন একটানা ১৫ দিন। দ্রুত মেদ কমাতে এ মিশ্রণ অসাধারণ কাজ করে।

(২) : এক চা চামচ জিরার গুঁড়া ৫ গ্রাম টক দইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। একটানা দুই সপ্তাহ প্রতিদিন এটি টকদইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে খান।

(৩) : এক গ্লাস পানিতে তিন গ্রাম জিরা পাউডার এবং কয়েক ফোঁটা মধু মিশিয়ে পান করুন।

(৪) : সমপরিমাণ আদা ও সিদ্ধ গাজর কুচিয়ে নিন। আপনি চাইলে আরও দু এক পদের সিদ্ধ সবজি দিতে পারেন। এবার এসব উপকরণ একসঙ্গে মিশিয়ে এর মধ্যে অল্প জিরার গুঁড়া, সামান্য লেবুর রস কুচানো আদা ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। রাতে অন্যকিছু ভারী খাবার বাদ দিয়ে এই সালাদ খান।

প্রতিদিন উল্লেখিত নিয়ম মেনে চললে দেখবেন দ্রুত আপনার ওজন স্বাভাবিকে এসেছে।

Tuesday, November 22, 2016

সারা শরীরে ব্যথা, জাদুকরি ১ কাপ চায়ে হবে দূর!



ঘাড় ব্যথা, মাথা ব্যথা কিংবা হাত-পাসহ সারা শরীরের ব্যথা কাবু করে ফেলেছে আপনাকে। কোনো কাজে মনযোগী হতে পারছেন না। তাই বরাবরের মতো এবারও সহজেই মুক্তি পেতে পেইনকিলারের সাহায্য নিয়েছেন।

তবে একটা বিষয় ভুলে গেলে চলবে না, পেইনকিলার সাময়িকভাবে ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে। পরে আবারও আপনাকে একই রকম ব্যথার সম্মুখিন হতে হবে, এটা আপনি বিশ্বাস করতে না চাইলেও সত্যি!

চিকিৎসকের মতে,  অতিরিক্ত পেইনকিলার আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

পেইনকিলারে উচ্চ রক্তচাপ (উচ্চ রক্তচাপ), ডায়রিয়া, বমি বমি ভাব, রক্তপাতের মত নির্দিষ্ট পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া, হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি, কিডনি রোগ এমনকি ক্যান্সারের মতো মরণ ঘাতক রোগও হওয়ার আশংকা থাকে।

আবার এ অসহ্য ব্যথা নিয়ে বসে থাকাও তো যায় না। তাহলে উপায়?

আরে এতো চিন্তা করছেন কেন? প্রাকৃতিক উপদান হলুদ দিয়ে তৈরি জাদুকরি এক চা, আপনার অসহ্য ব্যথা নিমিষেই কমিয়ে দেবে।

গবেষকদের মতে, হলুদের স্বাস্থ্যগুণ সবার জানা। হলুদের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদানও দেহের প্রদাহ জনিত ব্যথা দূর করতে বিশেষভাবে কার্যকরী।
তাহলে দেরি কেন?  আসুন জেনে নিই সেই জাদুকরি হলুদ চা তৈরির রেসিপি :

হলুদ চা তৈরির উপকরণ

চার কাপ পানি, দুই টেবিল চামুচ টাটকা মিহি হলুদ, একই পরিমাণ লেবু ও মধু (স্বাদ বাড়াতে)।

প্রস্তুত  প্রণালী

চুলায় পানি গরম করেত দিন। পানি গরম হলে এতে হলুদ গুঁড়া দিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট সিদ্ধ করুন। আপনি যদি ফ্রেশ হলুদ কুচি ব্যবহার করেন, তবে ১০ মিনিট সিদ্ধ করুন।পানি সিদ্ধ হয়ে আসলে এতে লেবুর রস অথবা মধু মিশিয়ে পান করুন।

তারপর দেখুন কীভাবে অল্প সময়ে জাদুকরি চায়ের সাহায্যে চিরবিদায় নিয়েছে আপনার শরীরের সব ব্যথা।

Saturday, November 19, 2016

বিস্ময়কর ক্ষমতা মেথির!





মেথি সবাই চেনেন। মেথিকে মসলা, খাবার, পথ্য—তিনটিই বলা চলে। স্বাদ তিতা ধরনের। এতে রয়েছে রক্তের চিনির মাত্রা কমানোর বিস্ময়কর শক্তি ও তারুণ্য ধরে রাখার বিস্ময়কর এক ক্ষমতা। যাঁরা নিয়মিত মেথি খান, তাঁদের বুড়িয়ে যাওয়ার গতিটা অত্যন্ত ধীর হয়।

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে মেথি চিবিয়ে খেলে বা এক গ্লাস পানিতে মেথি ভিজিয়ে রেখে সেই পানি পান করলে শরীরের রোগ-জীবাণু মরে। বিশেষত কৃমি মরে। রক্তের চিনির মাত্রা কমে। রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরল বা চর্বির মাত্রা কমে যায়। ডায়াবেটিসের রোগী থেকে শুরু করে হৃদ্‌রোগের রোগী পর্যন্ত সবাইকে তাঁদের খাবারে মেথি রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়। মেথির গুণাগুণ দেখলে একে অন্যতম সুপারফুড বলা চলে।


মেথির উপকারিতা জেনে নিন

১. মেথিতে আছে প্রাকৃতিক তন্তু, যা ওজন কমাতে বেশ কার্যকর। দিনে দুই-তিনবার মেথি চিবাতে থাকলে বেশি না খেলেও পেট ভরা মনে হবে। যাঁরা ওজন কমাতে চান, তাঁরা মেথি কাজে লাগাতে পারেন।

২. শীত একটু একটু করে আসছে। বাড়ছে সর্দিকাশিও। নিয়মিত মেথি খেলে সর্দিকাশি পালাবে। লেবু ও মধুর সঙ্গে এক চা-চামচ মেথি মিশিয়ে খেলে জ্বর পালাবে। মেথিতে মিউকিল্যাগ নামের একটি উপাদান আছে, যা গলাব্যথা সারাতে পারে। অল্প পানিতে মেথি সেদ্ধ করে সেই পানি দিয়ে গড়গড়া করলে গলার সংক্রমণ দূর হয়।

৩. চুল পড়া ঠেকাতে মেথি খেলে উপকার পাওয়া যায়। মেথি সেদ্ধ করে সারা রাত রেখে তার সঙ্গে নারকেল তেল মিশিয়ে নিয়মিত মাথায় মাখলে চুল পড়া কমে।

৪. অন্ত্রের নড়াচড়া বৃদ্ধি করে মেথি। যাঁদের পেট জ্বালা বা হজমে সমস্যা আছে, তাঁরা নিয়মিত মেথি খেতে পারেন। এতে ফাইবার ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে, যা শরীর থেকে ক্ষতিকর উপাদান দূর করে। মেথি ঝরানো পানি খেলেও হজমের সমস্যা দূর হবে। এমনকি পেপটিক আলসার সারিয়ে তুলতেও সাহায্য করে।

৫. রক্তে চিনির মাত্রা কমানোর অসাধারণ এক শক্তি থাকায় ডায়াবেটিস রোগের জন্য খুব ভালো এই মেথি।

৬. নিয়মিত মেথি খেলে পেটে কৃমি হয় না। সেই সঙ্গে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ে।

৭. মেথি আয়রনসমৃদ্ধ হওয়ায় রক্তস্বল্পতা, অর্থাৎ অ্যানিমিয়া রোগের পথ্য হিসেবে কাজ করতে পারে।

৮. মাতৃদুগ্ধ বাড়াতে ওষুধের বিকল্প হলো মেথি। সদ্য মা হওয়া নারীর জন্য মেথি উপকারী।

৯. ক্যানসার প্রতিরোধে কাজ করে মেথি, বিশেষ করে স্তন ও কোলন ক্যানসার প্রতিরোধের জন্য মেথি কার্যকর। মেনোপজ হলে নারীর শরীরে নানা ধরনের পরিবর্তন আসে। হরমোনের এই পরিবর্তনের কালে মেথি ভালো একটি পথ্য।

১০. মেথি পুরুষের শরীরে টেস্টোস্টেরন হরমোনের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে সক্ষম।

Wednesday, November 16, 2016

জেনে নিন কিডনি নষ্টের কিছু কারণ



যেহেতু কিডনি ছাড়া আমরা অচল, তাই কিডনি নষ্ট হওয়া থেকে বাঁচতে হলে আমাদের প্রত্যেকেরই কিডনি সম্পর্কে সচেতন হওয়া উচিত। কিন্তু আমাদের অগোচরেই অনেক সময় কিছু অসাবধানতার কারণে আমরা কিডনির ক্ষতি করছি।

জেনে নেই কিডনি নষ্টের গুরুত্বপূর্ণ সেই কারণসমূহ :

১। প্রস্রাব আটকে রাখা।
২। পর্যাপ্ত পানি পান না করা।
৩। অতিরিক্ত লবন খাওয়া।
৪। যেকোনো সংক্রমণের দ্রুত চিকিৎসা না করা।
৫। মাংস বেশি খাওয়া।
৬। প্রয়োজনের তুলনায় কম খাওয়া।
৭। অপরিমিত ব্যথার ওষুধ সেবন।
৮। ওষুধ সেবনে অনিয়ম।
৯। অতিরিক্ত মদ খাওয়া।
১০। পর্যাপ্ত বিশ্রাম না নেয়া।

মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গের মত কিডনিও আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কিডনিকে মানব দেহের ফিল্টার বলা হয়। কারণ কিডনি প্রাণী শরীরের পানি ফিল্টার করে আমাদের সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। কিডনির যদি নষ্ট হয়ে যায় তাহলে বেঁচে থাকাও আর সম্ভব নয়। তাই নিয়ম করে শরীরের যত্ন নিন।

কিডনি ও কিডনি রোগ সম্পর্কে জানুন এবং সচেতন হোন।

# আপনি জানেন কি, আপনার দুটো কিডনি প্রতিদিন প্রায় ১৭০ লিটার রক্ত পরিশোধিত করে আপনার শরীরকে সুস্থ রাখে?

# দুটো কিডনিতে প্রায় ২০-২৫ লাখ ছাঁকনি রয়েছে, যা অনবরত আপনার রক্তকে পরিশোধিত করে যাচ্ছে।

# কিডনি আপনার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে, রক্তস্বল্পতা দূর করতে সাহায্য করে এবং আপনার অস্থিগুলো শক্তিশালী করে থাকে।

# কিডনির প্রধান রোগ নেফ্রাইটিস বা নেফ্রোটিক সিনড্রোম, যা কিডনির ছাঁকনি বা ফিল্টার মেমব্রেনকে ক্ষতবিক্ষত করে। এর কারণে শরীর থেকে অত্যাবশ্যক প্রোটিন বেরিয়ে যায়।

# প্রস্রাব প্রদাহ কিডনির একটি সাধারণ রোগ হলেও শিশুদের ক্ষেত্রে মারাত্মক হতে পারে।

# ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ কিডনি রোগ নয়, তবু কিডনিকে আক্রান্ত করে কিডনির কার্যকারিতা কমিয়ে মারাত্মক জটিলতার সৃষ্টি করে।

# যেসব রোগ কিডনিকে আক্রান্ত করে কিডনির কার্যকারিতা বিনষ্ট করে বা কিডনি ফেইলার হয়: ১. নেফ্রাইটিস ২. ডায়াবেটিস ও ৩. উচ্চ রক্তচাপ। সুতরাং

# ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ ডায়াবেটিস রোগী কিডনি রোগে ভোগে থাকে।

# আপনার বয়স যদি ৪০ বছরের ওপরে হয়, আপনি যদি ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপে ভুগে থাকেন অথবা বংশে যদি কিডনি রোগ থাকে, তবে অবশ্যই আপনার রক্ত ও প্রস্রাব পরীক্ষা করে জেনে নিন, আপনার কিডনি রোগ আছে কি না।

# মেয়েদের গর্ভকালীন উচ্চ রক্তচাপ পরবর্তী পর্যায়ে কিডনি রোগের কারণ হতে পারে।

# শুধু রক্তচাপ, প্রস্রাব পরীক্ষা এবং রক্তের ক্রিয়েটিনিন ও সুগার পরীক্ষা করেই জানা যায় কিডনি রোগ আছে কি না।

বাংলাদেশে বর্তমানে দুই কোটি লোক কোনো না কোনো কিডনি রোগে আক্রান্ত। প্রাথমিক পর্যায় থেকে এসব রোগের চিকিৎসায় যত্নবান হোন এবং ডাক্তারের পরামর্শ নিন।